Srila-Govinda-Maharaj-Youth-Duotone-Thumb

On Sri Gaura’s 477th Appearance Day

Śrīla Bhakti Sundar Govinda Dev-Goswāmī Mahārāj’s poem on Śrīman Mahāprabhu’s 477th appearance day.

Translated from the original Bengali poem
published in Śrī Gauḍīya Darśan,
Volume 8, Issue 8, Tuesday, 12 March 1963.

৪৭৭তম শ্রীগৌরাবির্ভাবে

ওঁ বিষ্ণুপাদ শ্রীল ভক্তিসুন্দর গোবিন্দ দেবগোস্বামী মহারাজ

উঠিল মঙ্গল-রোল জগন্নাথ মিশ্রের অঙ্গনে ।
সুপ্ত ধরণীর হ’ল ধ্যানভঙ্গ মহা-সংকীর্ত্তনে ॥

সেদিন মধুর দিব্যধ্বনি, উদ্বেলিয়া ত্রিভুবন
প্রদানিল দিব্যকণ্ঠ । সুরাসুর চেতনাচেতন
অনন্তের মঞ্চতলে প্রেমানন্দে উঠিল গাহিয়া
‘জয় গৌরাঙ্গের জয়’। শচীগর্ভ সিন্ধু বিমথিয়া
সেইক্ষণে আবির্ভূত তুমি অকলঙ্ক পূর্ণশশী
গৌরচন্দ্র । তোমার পার্ষদবৃন্দ মহানন্দে ভাসি’
তুলিল বিকুণ্ঠতান । ধরণীর যত অসুন্দর
হ’ল তব দ্যুতিমালা সন্দীপিত পুরট সুন্দর—
হরি—নিত্যানন্দময় !
      সেই শুভ্রা ফাল্গুনী সন্ধ্যায়
যে মহা কীর্ত্তন রোল মহাপ্রেমে মাতিয়া বেড়ায়
অনন্ত ব্রহ্মাণ্ড ভেদি’ গোলোকে-দ্যুলোকে-বৃন্দাবনে—
সে আজি বিমলস্পর্শ দিয়ে যায় দখিনা পবনে
ক্ষণে ক্ষণে দিব্যভাব অনিন্দ্য-সুন্দর অভিনব ।
আজিও ভকত লভি ভক্তিযোগে তারি অনুভব
প্রেমানন্দে গড়ি যায়; অবাধ-আনন্দ-অশ্রুধারা ।
উৎফুল্লা ধরণী তাই জয়োল্লাসে আজি আত্মহারা ॥

বর্ষে বর্ষে যুগে যুগে তারি নিত্য অচিন্ত্যপ্রকাশে
কত কত চন্দ্র সূর্য্য তারাদল উচ্ছলিয়া হাসে
নাচে গায় । সে যে চির নিত্যধন; নিত্য বসুধায়
তোমারি জন্মের মত, তোমারি সে—নিত্যলীলাময়!
অপ্রাকৃত কর্ম্ম সম । সেবাময় প্রেমদৃষ্টি ভরে
ভক্তগণ নিরখিছে তাই আজি শচীর মন্দিরে
তব নিত্য আবির্ভাব । ভক্তবাঞ্ছা কল্পতরু তুমি ।

মায়া-জালাবৃত-চক্ষু সুদর্শন-হীন জন আমি
পতিত, অধম, পুণ্যহীন; নিজকৃত কর্ম্ম-দোষে
ভবার্ণবে পড়ি, বহু দুঃখ পাই অশেষে বিশেষে ।
আমারে তুলিয়া লহ কেশে ধরি’ করিয়া উদ্ধার
শ্রীচরণে । এদীন-তারণ নাম ঘুষুক সংসার ।

আজি শুভ আবির্ভাবে পুনঃ পুনঃ নমি দয়াময়—
ব্রহ্মাদি দুরধিগম্য তব দিব্য অচিন্ত্যলীলায় ॥

 

477 Tama Śrī Śrī Gaurāvirbhāve

Om Viṣṇupād Śrīla Bhakti Sundar Govinda Dev-Goswāmī

uṭhila maṅgala-rola jagannātha miśrera aṅgane
supta dharaṇīra hala dhyāna-bhaṅga mahāsaṅkīrtane

se-dina madhura divya-dhvani, udveliyā tribhuvana
pradānila divya-kaṇṭhe | surāsura chetanāchetana
anantera mañcha-tale premānande uṭhila gāhiyā
‘jaya gaurāṅgera jaya’ | śachī-garbha sindhu vimathiyā
sei kṣane āvirbhūta tumi akalaṅka pūrna-śaśī
gaurachandra | tomāra pārṣada-vṛnda māhānande bhāsi’
tulila vikunṭha-tāna | dharanīra yata asundara
ha’la tava dyuti-mālā sandīpita puraṭa-sundara—
hari—nityānandāmaya !
sei śubhrā phālgunī sandhyāya
ye mahā kīrtana-rola mahāpreme mātiyā beḍāya
ananta brahmāṇḍa bhedi’ goloke-dyuloke-vṛndāvane—
se āji vimala-sparśa diye yāya dakhinā pavane
kṣaṇe kṣaṇe divya-bhāva anindya-sundara abhinava |
ājio bhakata labhi bhakti-yoge tāri anubhava
premānānde gaḍi yāya; abādha-ānanda-aśru-dhārā |
utphullā dharaṇī tāi jayollāse āji ātma-hārā ||

varṣe varṣe yuge yuge tāri nitya achintya-prakāśe
kata kata chandra sūrya tārā-dala uchchhaliyā hāse
nāche gāya | se ye chira nitya-dhana; nitya vasudhāya
tomāri janmera mata, tomāri se—nitya-līlāmaya!
aprākṛta karma sama | sevāmaya prema-dṛṣṭi bhare
bhakta-gaṇa nirakhiche tāi āji śachī mandire
tava nitya āvirbhāva | bhakta-vāñchhā kalpa-taru tumi |

māyā-jālāvṛta-chakṣu sudarśana-hīna jana āmi
patita, adhama, puṇya-hīna; nija-kṛta karma-doṣe
bhavārṇave paḍi, bahu duḥkha pāi aśeṣe viśeṣe |
āmāre tuliyā laha keśe dhari’ kariyā uddhāra
śrī-charaṇe | e-dīna-tāraṇa nāma ghuṣuka saṁsāra |

āji śubha āvirbhāve punaḥ punaḥ nami dayāmaya—
brahmādi duradhigamya tava divya achintya-līlāya ||

 

On Śrī Gaurachandra’s 477th Appearance Day

Om Viṣṇupād Śrīla Bhakti Sundar Govinda Dev-Goswāmī Mahārāj

The auspicious sound of a grand saṅkīrtan arose in Jagannāth Miśra’s courtyard, and the sleeping world’s meditation broke.

That day a sweet, divine vibration produced by divine voices inundated the three worlds.

Both the good souls and the bad, the conscious and the unconscious, arose from Lord Ananta’s platform (the earth) with the joy of divine love and sang, “All glory! All glory to Gaurāṅga!”

At that time, O spotless full moon, Gaurachandra, You stirred from within the ocean of Śachī Mātā’s womb and appeared.

Your associates floated in the greatest joy and sang songs from Vaikuṇṭha. All that was not beautiful in the world was illumined by the beauty of Your golden radiance.

O Lord, You are filled with eternal joy!

Maddening everyone with deep divine love, the sound of the grand kīrtan on that bright spring evening filled innumerable universes and entered Goloka Vṛndāvan in the heavens.

Today, the pure touch of that grand kīrtan in the southern (auspicious) breeze gives rise to beautiful, faultless, ever-new divine joy from time to time.

Today also, hearing this grand kīrtan through their devotion, devotees roll about in the ecstasy of divine love and shed unchecked tears of joy. Thus today the jubilant earth is beside herself with the joy of the kīrtan’s glory.

How many moons, suns, and stars shine, laugh, dance, and sing year after year, age after age, by that kīrtan’s inconceivable, eternal resonance?

That eternal, timeless wealth (that grand saṅkīrtan), like Your eternal birth on earth and Your supramundane activities, is an eternal Pastime.

Thus, with their service-centred vision of divine love, devotees have seen Your eternal appearance in Śachī’s home today. You are the devotees’ wish-fulfilling tree.

My eyes are covered by Māyā’s net. I am devoid of proper vision. I am fallen, lowly, and unfortunate.

As a result of the sins I’ve committed, I have fallen into the ocean of material existence and undergone great suffering unlimitedly and acutely.

Grab me by the hair, lift me up, deliver me, and bring me to Your divine feet.

May Your Name as the deliverer of this fallen soul be proclaimed throughout the world.

Today, on Your auspicious appearance day, I bow to You again and again, O merciful Lord—in the midst of Your divine, inconceivable Pastimes, which are incomprehensible to Brahmā and the gods.

,