Srila Govinda Maharaj Australia

Forced to Drink Nectar

Srila Bhakti Sundar Govinda Dev-Goswami Maharaj describes Srila Bhakti Raksak Sridhar Dev-Goswami Maharaj’s powerful affection in his speech at the festival ten days after Srila Sridhar Maharaj’s disappearance in 1988.

The following is a rough translation of Srila Govinda Maharaj’s Bengali speech during the midday festival at Sri Chaitanya Saraswat Math on 22 August 1988. Following this is a transcription of the speech in Bengali.


devam divya-tanum suchanda-vadanam balarka-chelanchitam
sandrananda-puram sad-eka-varanam vairagya-vidyambudhim
sri-siddhanta-nidhim subhakti-lasitam sarasvatanam varam
vande tam shubhadam mad-eka-sharanam nyasishvaram sridharam

vanchha-kalpatarubhyash cha kripa-sindhubhya eva cha
patitanam pavanebhyo vaishnavebhyo namo namah

Today Parampujyapad Srila Puri Maharaj, Parampujyapad Srila Madhusudan Maharaj, and devotees from various Maths have mercifully assembled here. I always strongly feel the attraction that all of you have to my Gurupadapadma. In the presence of Guru Maharaj, there were no differences. He greatly respected everyone he met in Srila Prabhupad’s society. By his grace, everyone, from insects to Mahabhagavat Paramahamsa Vaishnavas, came to see him. I saw this, and I had the chance to associate with everyone who came.

I was with Srila Guru Maharaj twenty-four hours a day. I spent forty-two years of my life in the Math with him, and I went through all sorts of ups and downs. … I have never seen anywhere the way that he mercifully bound me to him and gave me the chance to associate with the Vaishnavas.

With regard to his mercy, I recall a verse. This verse should not be spoken from my mouth, but no more appropriate expression comes to mind. So, I will quote the verse; please forgive me.

vairagya-yug-bhakti-rasam prayatnair
apayayan mam anabhipsum andham
kripambudhir yah para-duhkha-duhkhi
sanatanas tam prabhum ashrayami
  (Vilapa-kusumanjali: 6)

[“I take shelter of Srila Sanatan Goswami Prabhu. He is an ocean of mercy and sorrowful to see the sorrow of others. Although I was blind and unwilling, he carefully induced me to drink the nectar of renounced devotion.”]

You all know this verse. Raghunath Das Goswami wrote this verse about Sanatan Goswami Prabhu, and by his mercy we have received it.

vairagya-yug-bhakti-rasam prayatnair
apayayan mam anabhipsum andham

Here Raghunath Das Goswami says, “I have drunk nectar”, yet I certainly have not. I have no qualification to drink the nectar of renounced devotion, so I will not say that I have. Yet through a verse of Guru Maharaj I have received hope. Thus I cannot deny that something has come into my heart. … If I deny that I have received from him a connection with something substantial, then I will be in great denial. Srila Kaviraj Goswami said,

apana-hridaya-kaja,    kahite vasiye laja,
    tabu kahi laja-bija khana
       (Sri Chaitanya-charitamrita: Adi-lila, 2.44)

[“I am ashamed to express my heart’s feelings. Still, having indulged My shame, I shall speak.”]

I am ashamed to recite Raghunath Das Goswami’s verse because I have no qualification to do so. I am one hundred percent sure of this; actually I am two hundred per cent sure. Still, I need to say something, and if I do not speak from my heart, what shall I say? … I feel that the way my Gurudev forcefully kept me at his feet and continues to do so even to this day is truly divine mercy. If you examine me, you will be sure that you are seeing an example of Guru Maharaj’s mercy.

vairagya-yug-bhakti-rasam prayatnair
apayayan mam anabhipsum andham

[“He carefully forced me to drink nectar though I was blind and unwilling.”]

I did not want to serve; I did not want to drink the nectar of renounced devotion. He, however, vowed to make me drink it; he vowed to give me this nectar though I would not drink it. … He is far more powerful than I am. I am a great offender and very unqualified. He forcefully kept with him a person like me from the time I was young, and still today he pulls me along with him. This is an example of the greatest mercy.

I consider myself greatly fortunate because he engaged me in learning things which were beyond my imagination. I have never understood the Lord’s service. I have never desired to serve the Lord. I have never properly understood the meaning of serving the Lord. The only thing I have understood is that Maharaj’s unconditional mercy attracts and keeps me at his feet; from time to time I feel the magnetism of his mercy playing within me, and I become astonished.

You all know the verse he wrote at the end of his book Prapanna-jivanamrita in which he explains why he wrote Prapanna-jivanamrita.

sri-srimad-bhagavat-padambuja-madhu-svadotsavaih shat-padair
niksipta madhu-bindavash cha parito bhrashta mukhad gunjitaih
yatnaih kinchid ihahritam nija-para-shreyo ’rthina tan maya
bhuyo-bhuya ito rajamsi pada-samlagnani tesham bhaje
    (Sri Sri Prapanna-jivanamritam: 10.14)

[“During the festival of relishing the honey from the Lord’s lotus feet, drops of honey fall from the mouths of the bees [devotees] as they hum (the glories of the Lord in an intoxicated mood). For my supreme benefit, I have carefully gathered some of those drops of nectar here, and I bow to the dust of the feet of those bees again and again.”]

Our Raghunath Das Goswami wrote vairagya-yug-bhakti-rasam prayatnair. Consider also the central idea by which Guru Maharaj manifested the nectar of devotion in this world.

sri-srimad-bhagavat-padambuja-madhu-svadotsavaih shat-padair
niksipta madhu-bindavash cha

Drinking the honey of the Lord’s lotus feet, the Lord’s devotees—the mahabhagavatas, the Lord’s associates—become intoxicated. They enthusiastically sing in an intoxicated mood and continue to drink the honey. If one drinks while talking, liquid spills from one’s mouth. If one speaks loudly, spit comes out from one’s mouth. Thus as the devotees, intoxicated by their devotion, sing and drink the honey from the Lord’s lotus feet, drops of the honey scatter in all directions.

yatnaih kinchid ihahritam nija-para-shreyo ’rthina tan maya

“I have gathered drops of honey that have fallen from their mouths and compiled them in this book. Why? ‘For my benefit.’ ‘For the benefit of others.’ ‘For my  supreme benefit.’ Various meanings may be applied here.

bhuyo-bhuya ito rajamsi pada-samlagnani tesham bhaje

“If I have any obligation, it is to the lotus feet of the Lord’s devotees, and thus  I offer my obeisance hundreds and hundreds, thousands and thousands of times to them.”

This is the idea behind Guru Maharaj’s book, and you all know that he has distributed this honey to the world.

We have seen that Guru Maharaj has an amazing character. People young and old would come to visit him, to offer their respect to him, to express their love for him, and to receive his love. We have also seen that many of his godbrothers came here not only to receive his love but to get peace within their hearts.

Yesterday, perhaps you remember, I said that Parampujyapad Madhav Maharaj would come here, speak with Guru Maharaj, take prasadam, and then lie on a torn mattress in Guru Maharaj’s room. Once I saw this and said to him, “Maharaj, what are you doing? Please get up. Guru Maharaj told you to lie on his bed. Please lie there. Guru Maharaj will lie on a bed outside.” Madhav Maharaj always appeared effulgent. He shined with a divine aura like that of the Lord’s as he rested. He replied, “Hey! Stop! I was resting peacefully, and now you are disturbing me. You cannot conceive of peace greater than that which I feel when I rest here on this torn mattress without a pillow.”

All of Guru Maharaj‘s godbrothers felt love like this for Guru Maharaj in their hearts. I saw so many examples of this. I have heard Guru Maharaj‘s glory from Parampujyapad Madhusudan Maharaj many times. I myself know nothing. What little I know is filled with offence.

eka-bara krishna-name yata papa hare
patakira sadhya nahi tata papa kare

[“A sinner cannot commit more sin than once chanting Krishna‘s Name can remove.”]

We are chanting Krishna’s Name, day and night we are chanting, “Hare Krishna, Hare Krishna, Hare Krishna”. Where is the effect? Do we see any result? We don’t. Why? The burden of our offences is increasing. The worst offence is sadhu-ninda, criticism of devotees.

satam ninda namnah paramam aparadham vitanute
    (Padma-purana)

[“Criticising devotees is the greatest offence to the Holy Name.”]

Disobeying Sri Guru and criticising sadhus are the worst offences. If we make such offences twenty-four hours a day, how will we speak Hari-katha? We have not understood true devotion to the Lord; we have not properly understood the true nature of Sri Guru.

Yet we are fortunate and should consider ourselves fortunate. Why? Guru Maharaj’s godbrothers have mercifully come here and from their mouths we have heard Guru Maharaj’s glory. This fulfils our hearts. Alone we cannot see him. Even though we always stay within him, we are like bedbugs and lice. Lice live on a man’s head, and bedbugs live in a man’s bed; do they associate with him?  … Actual association means understanding his nature and one’s relationship with him. This is only possible through the telescopic system. We cannot understand him otherwise. If we want to see stars in the sky, how shall we see them? We cannot see them with our open eyes. … We feel extremely fortunate that we have heard Guru Maharaj’s glories from his godbrothers.

In Sri Chaitanya-charitamrita (Antya-lila, 11.97), Sriman Mahaprabhu described the importance of a Vaishnava’s presence in this world.

haridasa achila prithivira ‘shiromani’
taha vina ratna-shunya ha-ila medini

“Haridas Thakur was the crown jewel of this world and without him the world is ‘jewel-less’. There are many jewels in the world, but a jewel like him will not appear again.”

Mahaprabhu Himself mourned in this way.

I have no qualification to speak such great words with my small mouth. I simply desire to remember these things in the company of you all. May Mahaprabhu grant his mercy so that by the mercy of you all my Gurupadapadma will always stay with me and shower his mercy upon me. I pray to you all that you will appeal on my behalf to Guru Maharaj, “You left without your boy! Please look after him.” What more can I say?


 শ্রীল ভক্তিসুন্দর গোবিন্দ দেবগোস্বামী মহারাজের বক্তৃতা

২২ অগুস্ত ১৯৮৮

দেবং দিব্যতনুং সুছন্দবদনং বালার্কচেলাঞ্চিতং
সান্দ্রানন্দপুরং সদেকবরণং বৈরাগ্যবিদ্যাম্বুধিম্ ।
শ্রীসিদ্ধান্তনিধিং সুভক্তিলসিতং সারস্বতানাম্বরং
বন্দে তং শুভদং মদেকশরণং ন্যাসীশ্বরং শ্রীধরং ॥

বাঞ্ছাকল্পতরুভ্যশ্চ কৃপাসিন্ধুভ্য এব চ ।
পতিতানাং পাবনেভ্যো বৈষ্ণবেভ্যো নমো নমঃ ॥

পরমপূজ্যপাদ শ্রীল পুরী মহারাজ এবং পরমপূজ্যপাদ শ্রীল মধুসূদন মহারাজ এবং অন্যান্য মঠ হতে বৈষ্ণবগণ আপনারা সকলেই আজকে কৃপা করে এসেছেন । আমাদের গুরুপাদপদ্মের প্রতি আপনাদের সকলেরই আকর্ষণ আমরা আগাগোড়া সব সময় অনুভব করছি । মহারাজের কাছে, আমাদের গুরু মহারাজের কাছে কোনো রকম ভিন্ন ছিল না । তিনি প্রভুপাদের গোষ্ঠি যাকে দেখেছেন তাকেই খুব বহুমানন করেছেন । একেবারে কীটানুকীট থেকে মহাভাগবৎ পরমহংস বৈষ্ণব সকলেই তাঁরে কাছে কৃপা করে এসেছেন । আমরা এটা দেখেছি এবং তাঁদের সকলেরই সঙ্গ করার সুযোগ আমাদের হয়েছে ।

আর চব্বিশ ঘণ্টায় আমরা গুরু মহারাজের কাছে ছিলাম । আজকে বিয়াল্লিশ বছর আমার এই মঠ জীবন … গুরু মহারাজের কাছে … উত্থান পতন আমার জীবনে হয়ে গিয়েছে । কিন্তু তিনি কৃপা করে আমাকে এমনভাবে টেনে রেখেছেন এবং সমস্ত বৈষ্ণবগণের সঙ্গে সুযোগ এমনভাবে দান করেছেন, যেটা আমরা স্বাভাবিক ভাবেতে কোথাও আর দেখতে পাই না ।

এই প্রসঙ্গে, তাঁর কৃপার প্রসঙ্গে আমার একটি শ্লোক মনে পড়ছে যেটা মানে আমার মুখ দিয়ে উচ্চারিত হওয়া উচিত না কিন্তু এর চেয়ে appropriate আর কোনো ধারণা আমার মাথায় আসছে না । সেইজন্য আমি সেইটি বলছি, ক্ষমা প্রার্থনা করে নিয়েন ।

বৈরাগ্যযুগ-ভক্তিরসং প্রয়ত্নৈরপায়য়ন্মমনভীপ্সুমন্ধম্ ।
কৃপাম্বুধির্যঃ পরদুখঃদুঃখী সনাতনং তং প্রভুমাশ্রয়ামি ॥
  (বিলাপকুসুমাঞ্জলিঃ ৬)

এই প্রণামটি আপনারা সকলেই জানেন । রঘুনাথ দাস গোস্বামী তিনি সনাতন গোস্বামী প্রভু সম্বন্ধে এই প্রণামটি তিনি লিখেছেন এবং আমরা তাঁর কৃপায় এটি পেয়েছি ।

বৈরাগ্যযুগ-ভক্তিরসং প্রয়ত্নৈরপায়য়ন্মমনভীপ্সুমন্ধম্ ।

রঘুনাথ দাস গোস্বামী তিনি তো বলেছেন যে আমি পান করেছি কিন্তু আমরা তো পান করি নাই । আমরা সেই জিনিস বৈরাগ্যযুগ-ভক্তিরস পান করার মত অধিকার আমার নাই এবং সেটা পান করে সেই  বলব না । কিন্তু গুরু মহারাজের একটি শ্লোকেতে কিছু আশা ভরসার কথা আমরা পেয়েছি । সেই জন্য কিছু যে ছিটেফোটা আমাদের ভিতরে এসেছে এ আমরা অস্বীকার করতে পারি না । তাঁর মুখ দিয়ে গলগল করে এ সমস্ত জিনিস বেড়োয় কি করে ? এর ভেতর যে কিছু বস্তু সঙ্গ আমাদের হয়েছে বস্তুর সম্পর্ক যে আমরা কিছু পেয়েছি এটা অস্বীকার করলে মহা-অস্বীকার করা হয় । যার জন্য কবিরাজ গোস্বামী তিনি বলে গিয়েছেন যে

আপন হৃদয়ে কাজ কহিতে ভাসিয়ে লাজ তবু কহি লাজ বীজ খাঞা ।
  (শ্রীচৈতন্যচরিতামৃত মধ্যলীলা ২।৪৪)

মানে বলতে গেলে লজ্জা লাগে, শ্লোক উচ্চারণ করতে গেলে লজ্জা লাগে কেননা এর অধিকারী আমি নই এটা আমি 100 per cent sure বরং 200 per cent বলতে পারি । কিন্তু তবুও তো আমাকে একটা কিছু বলতে হবে না বল্লে আমি করব টা কি ? … এমনভাবেতে আমার গুরুপাদপদ্ম আমাকে তাঁর চরণেতে জোড় করে ধরে রেখে দিয়েছিলেন এবং … এখনও পর্য্যন্ত তিনি ধরে রেখেছেন এটা একটা অদ্ভুত কৃপা আমরা অনুভব করতে পারি । আমার পানে যদি আপনারা তাকান সকলেই আপনারা ভরসা পাবেন আমাদের গুরু মহারাজের কৃপার নিদর্শন দেখে ।আমি চাই না ভজন করতে, আমি বৈরাগ্যযুগ-ভক্তি রস পান করতে চাই না কিন্তু তিনি আমাকে দিয়ে করাবেন এই হচ্ছে গিয়ে তাঁর প্রতিজ্ঞা, এক জনার প্রতিজ্ঞ হচ্ছে গিয়ে দেব আর এক জনার হচ্ছে গিয়ে পাব না । … আমার চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী । তা আমি হচ্ছে অত্যন্ত অপরাধী এবং অত্যন্ত unqualified যাকে বলে অযোগ্য । সেই রকম একটা লোককে উনি সেই ছোট থেকে ধরে রেখে দিয়েছেন এবং আজ পর্য্যন্ত তাকে টেনে নিয়ে চলেছেন এটা একটা মস্ত বড় কৃপার নিদর্শন ।

আর এতে আমিও আমাকে খুব সৌভাগ্যবান বলে মনে করছি কেননা এমন পাঠ তিনি আমাকে দিয়ে করাচ্ছেন যেটা আমার কল্পনার অতীত । আমি তো কোনো দিন হরিভজন জানি না , হরিভজন করতে চাই নি, হরিভজন করা কাকে বলে তা আমি ভাল বুঝি না । একটা জিনিস বুঝি যে মহারাজের অহৈতুকী কৃপা সেটা আমাকে কি ভাবে যে তাঁর চরণেতে আকার্ষণ করে রাখে তাঁর কিছু কিছু বিন্দু বিন্দু আকর্ষণের যাকে বলে বিদ্যুৎ সেগুলো আমার ভিতরে সময় সময় খেলে গিয়েছে এবং তাতে আমি অবাক হয়ে গিয়েছি ।

তাঁর একটি শ্লোক আছে আপনারা জানেন, প্রপন্নজীবনামৃততে তিনি লিখেছেন সব শেষেতে একটা কৈফিয়ৎ দিয়েছেন যে প্রপন্নজীবনামৃত গ্রন্থটা আমি কেন রচনা করলাম । শ্লোকটি হচ্ছে

শ্রীশ্রীমদ্ভগবৎপদাম্বুজমধুস্বাদোৎসবৈঃ ষট্পদৈ-
র্নিক্ষিপ্তা মধুববিন্দবশ্চ পরিতো ভ্রষ্টা মুখাদ্গুঞ্জিতৈঃ ।
যত্নৈঃ কিঞ্চিদিহাহৃতং নিজপরশ্রেয়োঽর্থিনা তন্ময়া
ভূয়োভূয় ইতো রজাংসি পদসংলগ্নানি তেষাং ভজে
  (শ্রীশ্রীপ্রপন্নজীবনামৃতম্ ১০।১৪)

বৈরাগ্যযুগ-ভক্তিরসং প্রয়ত্নৈরপায়য়ন্মমনভীপ্সুমন্ধম্ ।

যে শ্লোক লিখেছেন আমাদের রঘুনাথ দাস গোস্বামী তিনি আপনারা দেখুন আর একটা idea এর মাঝখান থেকে গুরু মহারাজ কি করে সেই জিনিসটা জগতে আবার প্রকাশ করছেন । উনি বলছেন যে ভগবানের পাদপদ্মের মধু

শ্রীশ্রীমদ্ভগবৎপদাম্বুজমধুস্বাদোৎসবৈঃ ষট্পদৈ-
র্নিক্ষিপ্তা মধুববিন্দবশ্চ

ভগবানের পাদপদ্মের মধু পান করছেন মত্ত মধুকর তাঁর ভক্তগণ, মহাভাগবৎগণ, তাঁর সমস্ত পার্ষদগণ এবং মধু পান করলে কি হয় না মত্ততা আসে ।  তারা খুব করে গান করছেন মত্ততাতে খুব করে গান করছেন এবং মধু পান করছেন, তা খেতে খেতে কথা বললেই তো মুখ থেকে ছিটকে পড়ে । সব মানে এমনি বেশি জোড়ে কথা বল্লে তো থুতু বেড়িয়ে যায় । আর খেতে খেতে কথা বল্লে সে তো ছিটকে পড়ে । সে মধুগুলি যেগুলি ছিটকে চারিদিকে পড়ছে

যত্নৈঃ কিঞ্চিদিহাহৃতং নিজপরশ্রেয়োঽর্থিনা তন্ময়া

আমি সেইগুলোকে, তাঁরা তো পান করছেন তারা নিজের রসে নিজে মত্ত আছেন, আমি ওই যে বিন্দু বিন্দু সব মধু সব ছিটিয়ে পড়েছে চারিদিকে, আমি সেগুলিকে কুড়িয়ে নিয়ে এখানে এক জায়গায় সমাহৃত করেছি । হ্যাঁ, কেন ? না আমার মঙ্গলের জন্য এবং আরও দশ জনের মঙ্গলের জন্য । অথবা আমার পরমমঙ্গলের জন্যে, যে কোনো অর্থতেতেই ব্যবহার করা যায় ।

নিজপরশ্রেয়োঽর্থিনা তন্ময়া
ভূয়োভূয় ইতো রজাংসি পদসংলগ্নানি তেষাং ভজে

অথবা আমার যদি কিছু obligation থাকে সেটা ওদেরই পাদপদ্মেতে আছে । ভগবৎ ভক্তের পাদপদ্মেতে আমার obligation এবং আমি সেই জন্য তাঁদের পদপদ্ম হাজার হাজার বার, শত শত বার আমি এখানে বন্দনা করছি ।

এই হচ্ছে গিয়ে গুরু মহারাজের গ্রন্থের idea এবং সেই জিনিস জগতকে তিনি নিজে যে বিতরণ করেছেন এটা আপনারা সকলেই জানেন । আমরা গুরু মহারাজের চরিত্র যা দেখেছি সেটা একটা অদ্ভুত রকমের যে আমি আগেই বলেছি যে একবারে ছোট থেকে বড় পর্য্যন্ত সকলেই তাঁর কাছে আসতেন তাঁকে ভালবেসে তাঁর দর্শন করতে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেনদন করতে তাঁর কাছে ভালবাসে পেতে, সেটাও আমরা দেখেছি যে শুধু তাঁকে ভালবাসতে আসতেন না ভালবাসার কাঙ্গাল এমন অনেক গুরুভাই আছে, যাঁরা একটু মহারাজের কাছে এলে তাঁরা অনেকে হৃদয়েতে শান্তি লাভ করতেন ।

কালকে আমি বলেছি আপনাদের মনে আছে কিনা যে পরমপূজ্যপাদ মাধব মহারাজ তিনি এসেছেন এসে গুরু মহারাজের সঙ্গে কথাবার্ত্তা বলে যা হয় খাওয়াদাওয়া করে একটা ছেঁড়া মাদুর … টেনে নিয়ে তিনি মহারাজের ঐ ঘরেরে মধ্যে পেতে শুয়ে পড়েছেন । তখন মাধব মহারাজ দেখতে অপূর্ব্ব চেহারা ছিল ভগবানের মত একবারে দিব্য জ্যোতি শুয়ে পড়েছেন একেবারে ধবধব করছে । আমি দেখে বলি মহারাজ এ কি করেছেন ?  আপনি শীঘ্রই উঠুন, আপনাকে গুরু মহারাজ খাটে শুতে বলেছেন , আপনি খাটে শোবেন । আর মহারাজ বাইরের খাটে শুয়ে থাকবেন । উনি বললেন আরে তুমি থাম তো, আমি এখন একটু শান্তিতে শুলাম । আর তুমি এখানে এসে আমাকে disturb করছ । আমি যেখানে শুয়ে পড়লাম এটা বালিশ না নিয়ে ছেঁড়া মাদুরেতে এর চেয়ে শান্তি তুমি ধারণা করতে পারবে না ।

তা এই রকম ছিল সমস্ত গুরুভাই এদের সব হৃদয়ের একটা মহারাজের প্রতি ভালবাসা । এ গুলো সব আমরা দেখেছি । পরমপূজ্যপাদ মধুসূদন মহারাজ এর কাছ থেকে আমরা বহুবার শ্রীগুরুপাদপদ্মের মাহাত্ম্যের কথা শুনেছি । নিজে ত কিছুই জানি না । আর যে টুকু জানি সে টুকু তো সব অপরাধে বোঝাই । তা না হলে

একবার কৃষ্ণনামে যত পাপ হরে ।
পাতকীর সাধ্য নাই তত পাপ করে ॥

তা হলে এত কৃষ্ণনাম করছি, দিন রাত ‘হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ’ করছি, কৈ ? কোনো ফল কে আমরা চোখের সামনে কি দেখতে পাচ্ছি ? পাচ্ছি না । কেন ? না আমরা অপরাধের বোঝাটাকেই বাড়িয়ে চলে যাচ্ছি । আর সেই বোঝার মধ্যে যে কয়টা item দেওয়া আছে, তার মধ্যে সবচেয়ে বড় item হচ্ছে গিয়ে সাধু নিন্দা ।

সতাং নিন্দনম্নঃ পরমপরাধম্বিতনুতে
  (পদ্মপুরাণ)

গুর্ব্বাবজ্ঞা, সাধু নিন্দা, এগুলি হচ্ছে গিয়ে সবচেয়ে বড় item । আর আমরা চব্বিশ ঘণ্টা যদি সেগুলি করি, তাহলে আমাদের মুখে দিয়ে আর হরিকথা ভগবানের কথা কি করে বেড়বে ? অতএব আমরা সত্যি কারের হরিভজন কাকে বলে সেটা ও বুঝি না, সত্যি কারের গুরুদেব কি তত্ত্ব তাও ভাল জানি না ।

তবে আমাদের সৌভাগ্য হয়েছে এবং আমরা নিজে নিজেকে ভাগ্যবান বলেই মনে করব । কেন ? না গুরু মহারাজের যে সমস্ত গুরুভাই তারা কৃপা করে তাঁর কাছে এসেছেন, তাঁদের মুখ থেকে আমরা তাঁর মাহাত্ম্য যে সব শ্রবণ করেছি, তাতে আমাদের হৃদয় ভরপূর হয়ে যায় এবং আমরা যেটা নিজে তাঁকে দেখতে পাই না, আমরা সব সময় তাঁর কাছে বাস করলেও সেই ছার পোকার মত বা ইকুনের মত যেমন ইকুন তো মানুষের মাথায় বাস করে ছার পোকাও সেই বিছানায় বাস করে, সে কি আর সঙ্গ করে ? … প্রকৃত সঙ্গে হচ্ছে গিয়ে তাঁর স্বরূপের উপলব্ধি, তাঁর সম্বন্ধে জানা, তাঁর তত্ত্ব সম্বন্ধে অবগত হওয়া, এই গুলো হচ্ছে গিয়ে প্রকৃত সঙ্গ । এবং সেটা একমাত্র telescopic systemএতেই সম্ভব । অন্য কোন ভাবে আমরা সেই জিনিসটা পেতে পারি না । আমরা, যদি আকাশে কোন গ্রহ নক্ষত্রকে আমরা দেখতে যাই, তাহলে আমরা কিভাবে দেখব ? না আজ খালি চোখে তো দেখতে পাই না । … মাহাত্ম্যের কথা শ্রবণ করেছি তাতে আমরা ধন্যাতিধন্য নিজেকে মনে করি । এত বড় জিনিস জগতে যে এখানে রয়েছে, চৈতন্যচরিতামৃতেতে মহাপ্রভু বলেছেন

হরিদাস আছিল পৃথিবীর ‘শিরোমণি’ ।
তাহা বিনা রত্নশূন্য হইল মেদিনী ॥
  (শ্রীচৈতন্যচরিতামৃত অন্ত্যলীলা ১১।৯৭)

তিনি ছিলেন পৃথিবীর শিরোমণি এবং তাঁকে বাদ দিয়ে পৃথিবী রত্নশূন্য হয়ে গেল । অনেক রত্ন পৃথিবীতে আছে কিন্তু এই রকম একখানা বড় jewel এটাতো আর জন্মাবে না, সহসা হবে না, মহাপ্রভু নিজেই আফশোস করে বলছেন ।

তা এ সব ছোট মুখে বড় কথা আমার বলার অধিকার নেই । আমি এগুলো কেবল একটু স্মরণ করতে চাই আপনাদের সকলের সামনেতে । মহাপ্রভু কৃপা করুন আপানদের সকলের কৃপায় যাতে গুরুপাদপদ্ম আমাদের সঙ্গে সব সময় থাকেন, সব সময় তিনি তাঁর কৃপা বর্ষণ করতে থাকেন । আপনাদের সকলের কাছে আমি এই প্রার্থনা জানাচ্ছি যা আপনার আমার হয়ে একটু তাঁর কাছে appeal করুন যে ছেলেটাকে তো আপনি ছেড়ে চলে গেলেন ! কিন্তু একটু  নজর রাখবেন । এই আর কি বলব ?

, , , ,